×
ভালোবাসার গল্প গুলো Profile Picture



About
ভালোবাসার গল্প গুলো

Details

মোবাইলটা দ্বিতীয় বারের মত বেজে চলেছে । রিসিভ করতে ইচ্ছা করছে না । আর পরিচিত কেউ না । ঘরির দিকে আবার তাকালাম । রাত প্রায় একটা । এতো রাতে কার আবার দরকার পড়ল আমাকে । মনটা আজ এমনিতেও ভাল নেই ।
কিন্তু ফোনটা বেজেই চলেছে । বিরক্তির যখন চরম সীমায় পৌছালাম তখন ফোন টা রিসিভ করলাম ।
“হ্যালো আবির” ? কন্ঠে খানিকটা সংকা ।
“আবির বলছো ? আমি বর্ণা” । আমি খানিকটা না বেশ খানিকটা অবাক হলাম ।
এতো রাতে বর্ণা আমাকে কেন ফোন করবে ?
সরি বলার জন্য ?
অন্তত আজ যা হল তার জন্য তো ওর সরি বলা উচিত্ ই ।
“আবির বলছ” ? ও আবার বলল ।
“ হু বলছি । কেন ফোন করেছ” ?
“বাব্বাহ এতো রাগ” ! ও হেসে উঠল ।
মনে হল যে ফোনটা রেখে দেই । কিন্তু রেখে দিতে পারলাম না । কিছু কিছু মানুষের ফোন ইচ্ছা করলেই রেখে দেওয়া যায় না ।
বর্ণা বলল “আচ্ছা আজ তুমি এমন একটা কাজ কেন করলা ? সবার সামনে এমন করে প্রপোজ করার দরকার ছিল কি ? ফোন করে বলা যেত , ফেইসবুক চ্যাটিং এ বলা যেত আর যদি সরাসরি বলতেই হত তাহলে আমাকে আড়ালে ডাকতে ! আমরা অন্য কোথাও দেখা করতাম । এরকম গাধার মত সবার সামনে প্রপোজ করার দরকার ছিল কি” ?
আমার কাছে কোন উত্তর নেই ।সত্যিই এরকম গাধামি করার দরকার ছিল কি ?
“আমি ...........”
আচ্ছা এক মিনিট ।
বর্ণা এসব কথা কেন বলছে ?
ও তো আমাকে রিফিউজ করেই দিয়েছে ।
তাহলে ওর এতো মাথা ব্যাথা কেন ?
আমি বললাম “আচ্ছা তোমার এতো মাথা ব্যাথা কেন ? আমার যা বলার আমি বলেছি তোমার যা বলার তুমি বলেছ । তাহলে আবার এসব কথা কেন আসছে” ?
“ আহা বলব না ! উনি বড় বীরত্বের কাজ করেছে ! গাধা কোথাকার” !
আরে এই মেয়েটা আমার সাথে এভাবে কেন কথা বলছে । মনে হচ্ছে যেন আমি তার বয়ফ্রেন্ড । যা বলবে তাই আমাকে মেনে নিতে হবে ।
আমি বললাম “আচ্ছা তুমি আমার সাথে এমন ভাবে কথা বলছো কেন” ?
“বলছি । কেন বলছি সেটা কাল বুঝতে পারবা” ।
“মানে ? মানে কাল সকাল ১০ টার সময় আমার সাথে দেখা করবা । বেইলী রোডের আলবেইকের সামনে” ।
“ না । কাল সকালে আমার কাজ আছে । আমি থাকতে পারব না” ।
আসলে আমার কোন কাজ নেই । কেন এতো সহজে রাজি হব ?
“ শোন কাজফাজ জাহান্নামে যাক । তোমাকে বলেছি থাকতে থাকবা । আর কিছু শুনতে চাই না” ।
আমি এবার সত্যি সত্যিই অবাক হলাম । এই মেয়েটা আমার উপর এতো অধিকার ফলাচ্ছে কিভাবে ? আর আমিই বা এটা মেনে নিচ্ছি কেন ? আশ্চর্য !
“আর শোন ! ফর গডসেক ! প্লিজ আমাদের মাঝে যা কথা বার্তা হল তোমার কোন ফ্রেন্ডকে বলবা না । মনে থাকবে” ?
“থাকবে” ।
“প্রমিজ কর” ।
“আচ্ছা বাবা থাকবে । কারলাম প্রমিজ” ।
“কাউকে বলবো না । আচ্ছা এবার তাহলে ঘুমাও । বেশি রাত জাগতে নেই । গুড নাইট” ।
আচ্ছা । বর্ণা ফোন রেখে দিলো । ও এমন কেন করল ঠিক বুঝলাম না । কাল কেন দেখা করতে বলল ।
কি বলবে ?
আর এভাবে আমার উপর জোরই বা খাটালো কেন ? এই মেয়ে গুলো এতো জটিল হয় । এদেরকে বোঝা আসলেই দায় !
বর্ণাকে সেই ফাস্ট ইয়ার থেকেই চিনি । অন্য সব মেয়ে গুলো থেকে আলাদা । চুপচাপ থাকে কথা বলে কম । প্রথম থেকেই ওকে ভাল লাগতো । সেই ভাললাগা কখন যে ভালবাসায় পরিণত হয়েছে টের ও পাই নি ।
একা একা আর কত দিন থাকবো তাই ঠিক করলাম বলেই দেবো । টুকটাক কথা বার্তা বলতাম ।
কালকে একদম সবার সামনে ওকে প্রপোজ করে বসলাম ।
কিন্তু হায় ও মুখের উপর না বলে দিল । এই মেয়ে গুলো এতো নির্দয় হতে পারে । তারপর রাতে এই ফোন । কিছুই বুঝলাম না । মেয়ে গুলো এমন জটিল কেন হয় !
ওর কথা ভাবতে ভাবতেই ঘুমিয়ে পড়লাম । সকালে উঠতে হবে ।
মুখে যাই বলি না কেন , ওকে তো পছন্দ করি খুব । ওর কথা কি ফেলা যায় ? কিছুতেই না । দেখা যাক কি বলে ও পরদিন ও আমার আগেই পৌছে গেল ।
আমার যেতে একটু দেরি হয়ে গেল । আমি গিয়ে দেখি ও দাড়িয়ে আছে আমার জন্য । আমি সামনে গিয়ে দাড়ালাম ।
ও কিছু বলতে গিয়েও বলল না । আমাকে নিয়ে রেস্টুরেন্টের ভিতরে নিয়ে গেল । আমি খানিকটা অস্বস্তিতে ছিলাম । সাথে সাথে ভালও লাগছে । ভাল লাগছে এই ভেবে যে এর আগে কথনও বর্ণার সাথে এমন ভাবে দেখা করি নি । বর্ণা আমার দিকে তাকিয়ে আছে ।
আমার চোখে চোখ রেখে বলল “কাল যেটা বললা সেটা কি তুমি সত্যি ফিল কর নাকি এমনি টাইম পাস” ।
“টাইমপাস কেন হবে” ?
বর্ণা খানিকক্ষন আমার চোখের দিকে তাকিয়ে থাকলো । মনে হল বোঝার চেষ্টা করছে ।
“তাহলে তোমাকে আমার কিছু কথা শুনতে হবে । শুনবে” ?
“শুনবো” ।
“ বল” ।
“তুমি কি আমার উপর রাগ করেছ তোমাকে রিফিউজ করছি বলে” ?
“রাগ করিনি । তবে কষ্ট পেয়েছি” ।
বর্ণা আমার দিকে হাত বাড়িয়ে দিল । হাত ধরতে বলল । আমি টিপটিপ নিঃশ্বাসে ওর হাতে হাত রাখলাম । ওর নরম হাতটা শুধু যেন আমার হাত না আমার বুকের মধ্যে স্পর্শ করল ।
বর্ণা বলল “আই এম সরি টু হার্ট ইউ । কিন্তু কাজটা আমি ইচ্ছে করে করেছি” ।
“ কেন” ?
“কারন নিশ্চই আছে । জানো আবির আমাদের ফ্যামিলি টা খুব বেশি কন্জারভেটিভ । আমার বাবা এই সব প্রেম ভালবাসা এক দম পছন্দ করেন না । আমাকে সেই ভাবেই বড় করা হয়েছে । কিন্তু ...” ।
“কিন্তু কি” ?
“ আবির মন কি এসব মানে বল ? তুমি যেমন আমাকে পছন্দ কর আমিও ঠিক একই ভাবে পছন্দ করি । অনেক আগে থেকেই “।
আমি অবাক হলাম খুব । সত্যি কি তাই ।
“তুমি যখন সবার সামনে আমাকে প্রপোজ করলে আমি যে কি পরিমান খুশি হয়েছিলাম ! কিন্তু আমি যদি হ্যা বলতাম তাহলে কোন না কোন ভাবে কথাটা আমার বাসায় পৌছে যেত । আর বোঝই তো । আমার সব কিছু বন্ধ হয়ে যেত । তুমি নিশ্চই বুঝতে পারছো” ?
“হু”।
কিছুক্ষন আমরা কেউ কথা বলতে পারলাম না । কেবল একে অপরের দিকে তাকিয়ে রইলাম । কিছুক্ষন পর ওর লজ্জা পেল । “কি দেখছো ওমন করে” ?
“ইস আমি আমার গার্লফ্রেন্ড কে দেখছি । যত ইচ্ছা দেখবো” ।
ও আরো লজ্জা পেল ।

image

এক্ টা সময় ছিল ওর কথা খুব বেশি করে মনে পড়ত । ওর কথা মনে হলে বুকের এক পাশটা কেমন জানি করে উঠত । মনেহত ওকে ছাড়া হয়তো বেঁচে থাকাই সম্ভব নয় । কিন্তু এই আমি দিব্যি বেঁচে আছি ।
আমাদের ইংরেজি স্যার বলতেন সময় সব বেদনার সফল ঔষধ । আসলেই তাই । কিন্তু এখন ও আকাশে মেঘ ডাকলে ওর কথা মনে পড়েই যায় ।
ও বারান্দার গ্রিল ধরে বৃষ্টি দেখতে খুব পছন্দ করত । প্রায় ই দেখতাম গ্রিলের মধ্যে হাত দিয়ে ও বৃষ্টির পানি নিয়ে খেলা করছে । আমি সুযোগ পেলেই দেখতাম ওকে । মুখোমুখী বাসা হওয়ার ওর বাবান্দা টা খুব ভাল করেই দেখা যেত আমার জানালা থেকে । প্রথম প্রথম আমাকে দেখলেই ও ঘরের ভিতর চলে যেত । কিন্তু একদিন দেখলাম আমাকে দেখেও ও বারান্দা থেকে চলে গেল না । আপন মনে বৃষ্টির জল নিয়ে খেলতে থাকলো । সে দিন আল্লাহর কাছে বারবার দোয়া করছিলাম যেন বৃষ্টি না থামে । তারপর থেকে প্রায়ই চলতে থাকলো আমাদের চোখাচোখির খেলা । মাঝে মাঝে এক চিলতে হাসিও দিত আমাকে দেখে ।
এক দিনের কথা । রাত তখন একটা দেড়টা হবে । আমি পড়ছিলাম । হঠাৎ দেখি আমার ঘরের মাঝে লাল লাল কিছু আলো বিন্দু খেলা খেলছে । প্রথমে ভয় পেলেও পরে বুঝলাম আলো টা আসছে সামনের বারান্দা থেকে । দৌড়ে গিয়ে দাড়ালাম জানালার কাছে । গিয়ে দেখি প্রিন্সেস দাড়িয়ে আছে বাড়ান্দায় ।
আজ আর কোন লুকচুরি নয় । সরাসরি তাকিয়ে ছিলাম ওর চোখের দিকে । ও ঠিক একই ভাবে তাকিয়ে ছিল আমার দিকে । কোন কথা নাই কেবল দুই জোড়া চোখ একে ওপরের দিকে তাকিয়ে আছে অপলক । কতক্ষন তাকিয়ে ছিলাম জানি না । এক সময় ও কথা বলে উঠল
-ঘুমিয়ে পড় , বেশি রাত জাগতে নেই ।
ব্যস এইটুকুই । তারপর ও ঘরের ভিতর চলে যায় । একটু পর লাইট বন্ধ হয়ে যায় ওর ঘরে । এভাবেই চলতে থাকে দিনের পর দিন । কোন কথা নাই কেবল নির্বাক চেয়ে থাকা একে ওপরের দিকে ।
তারপর একদিন ঘটল সেই অবিশ্বাস্য ঘটনা । যার জন্য আমি প্রস্তুত ছিলাম না মোটেই ।
সেদিন সকালবেলা স্কুলে যাচ্ছিলাম । সকাল বেলা । স্কুলের সামনে নেমে রিক্সা ভাড়া দেওয়ার জন্য টাকা বের করছি এমন সময় আমার চোখ গেল স্কুলগেটের পাশের কড়ই গাছটার নিচে । একটা স্কুল ড্রেসপরা একটা মেয়ে দাড়িয়ে আছে জড়সড় হয়ে । মেয়েটার দিকে ভাল করে তাকাতেই .....
OMG!!!
এতো..... ও ।
ও মানে আমার সামনের বাড়ির মেয়েটা ।
ও এখানে ??
মনের মধ্যে হাজার টা প্রশ্ন এক সাথে উকি দিলো ।
ও এখানে কি করছে ?
কি চায় ?
এখানে কি কারো সাথে দেখা করতে এসেছে ?
আমার সাথে নাকি ?
এরকম হাজার টা প্রশ্ন । যার কোন টারই উত্তর আমার জানা নাই । খানিকটা দুরুদুরু হৃদয় আর কাঁপা কাঁপা হাতপা নিয়ে ওর দিকে এগিয়ে গেলাম । মেয়ে সেই একই ভাবে নির্বাক চোখ নিয়ে তাকিয়ে ছিল আমার দিকে ।
কাঁপা গলায় বল্লাম "এখানে ?"
ও কিছু বল্লো না । বইয়ের ভিতর থেকে একটা খাম বের করে আমার দিকে এগিয়ট দিল । আমার কি মনে হচ্ছিল বলতে পারব না । কিন্তু যা হচ্ছিল তা আমার বিশ্বাস হচ্ছিল না কিছুতেই ।
তাই খানিক টা বেকার মতই প্রশ্ন করলাম
"কি এটা ? আমার জন্য ?"
প্রশ্ন করার পর মনে হল কি গাধা আমি ! কি বলব আর কি বললাম । ও খানিকটা গম্ভীর মুখ নিয়ে বল্লো
-এপ্লিকেশন লেটার । তোমার হেড স্যারের জন্য ।। গাধা কোথাকার ! বোঝ না কি ?
তারপর ও পেছন ঘুরে হাটা ধরল । একবার মনে হল ডাক দেই । দিলাম না ।
কিন্তু দেখলাম ও নিজেই ঘুরে তাকাল । এক বার । পরে আরো একবার ।
ওর যাওয়া দেখতে দেখতেই খাম টা খুল্লাম । A4 সাইজের অপসেট পেপার । পুরো পৃষ্টায় কেবল একটা বাক্যই লেখা ।
"আমি তোমাকে ভালবাসি"
ব্যস আর কিছু না । অবশ্য আর কিছুর দরকার ও নাই । চিঠি থেকে মুখ তুলে ওর দিকে তাকালাম । ততক্ষনে ও অনেক দুর চলে গেছে । খুব ইচ্ছা করছিল দৌড়ে গিয়ে ও কে বলি "আমিও তোমাকে ভালবাসি" । কিন্তু স্কুলের ঘন্টা পড়ে যাওয়ায় আর যাওয়া হল না । অন্য রকম এক ভাল লাগা নিয়ে স্কুলে ঢুকলাম । মন তখন অসম্ভব ভাল ।
কিন্তু মন বেশিক্ষন ভাল থাকে নি সেদিন । প্রথম পিরিয়ড যাওয়ার আগের বাসা থেকে খবর আসে যে আব্বা গাড়িতে করে অফিস যাওয়ার সময় এক্সসিডিং করেছে । স্কুল থেকে হাসপাতালে চলে যেতে হয়েছিল । তারপর কিভাবে দিন চলে গেল টের ই পেলাম না । আব্বা একটু সুস্থ হলে তারপর আসি বাসায় । তাও প্রায় ৭/৮ কেটে গেছে । বাসায় এসে প্রথমেই ওর কথা মনে পড়ল ।
অনেক্ষন জানালার কাছ দাড়িয়ে থাকলাম । বিভিন্ন ভাবে জানান দেওয়ার চেষ্টা করলাম যে আমি এসেছি । কিন্তু তার কোন খবর নাই । ভাবলাম হয়তো রাতের বেলায় আসবে । কিন্তু রাতের বেলাও সে এল না । তারপর দিনও না । এমন কি তারপর দিনও না ।
তারপর ই সেই খবর পেলাম তার । ৫ দিন আগেই নাকি তারা বাসা ছেড়ে চলে গেছে । ওর বাবার হঠাৎ করে বদলির নির্দেশ আসায় নাকি এমন টা করতে হয়েছে ।
হায়রে কপাল আমার ! আমার প্রেম কাহিনী শুরুর আগেই শেষ হয়ে গেল । ও চলে যাওয়ার পর আমার দিন গুলো কষ্টে কাটতো । কিচ্ছু ভাল লাগতো না । বেঁচে থাকাটা বড় অর্থহীন মনে হত । মনে হত মরে যাই ।
তারপর আর আমার জীবনে প্রেম আসে নি । সময় গড়িয়েছে । স্কুল পেরিয়ে কলেজ তারপর বিশ্ববিদ্যালয়ে এসেছি তবুও তার কথা ভূলতে পারি নি কিছুতেই । তাকে হারানোর ক্ষত হয়তো শুকিয়েছে কিন্তু সেই দাগ মুছে যায় নি । এভাবেই দিন চলে যাচ্ছিল ।
তারপর……… তারপর ঘটলো আবার এক অবিশ্বাস্য ঘটনা । ও আবার এল আমার জীবণে । এমন ভাবে যা আমি কল্পনাই করি নি ...
সেদিন আমাদের ডিপার্টমেন্টে নবীণ বরণ অনুষ্ঠান ছিল । স্যারদের সাথে ভাল সম্পর্ক থাকার কারনে মোটামুটি সব দায়িত্বই ঘারে এসে পড়ল । অনুষ্ঠান শুরু হবার পর থেকেই আমার কেন কেন জানি মনে হতে থাকে কেউ যেন আমাকে দেখছে । আমার দিকেই তাকিয়ে আছে । এই ফিলিংসটা আমার খুব স্ট্রং । কেউ আমার দিকে কিছুক্ষন তাকালেই আমি বুঝে ফেলি ।
খুব বেশি আমলে নিলাম না । কারন এতো ছেলে মেয়ে যে কেউ তাকাতেই পারে ! অনুষ্ঠানের এক পর্যায়ে সব নতুন ছেলে মেয়ে দের দাড়িয়ে নাম ঠিকানা বলতে বলা হল । সবাই একে একে বলতে থাকে । কে কোথা থেকে এসেছে ইতাদি । আমরা বন্ধুরা যারা অনুষ্ঠানে ছিলাম সবাই ই ব্যস্ত ছিলাম ।
তবুও একটা নাম শুনে আমার বুকটা ধক করে উঠল । আমি ফুল ঠিকঠাক করছিলাম নতুন শিক্ষার্থীদের দেবো বলে ।
এমন সময় একজন তার নাম ঠিকানা বলছিল । "আমি রেহনুমা নাহিদ । এসছি যশোর থেকে ...."
আমি চড়কির মত ঘুরে দাড়ালাম । কন্ঠ টা আমার খুব চেনা । এতো বছর পরও একটুও ভূলি নাই সে স্বর । আর রেহনুমা নাহিদ ওর নাম ।
আমার যেনো বিশ্বাসই হচ্ছিলো না যা ও হতে পারে । তাকালাম ওর দিকে । আমি কত দিন পর আবার ঐ মুখ খানি দেখলাম ।
সেই নির্বাক চোখ জোড়া একই ভাবে তাকিয়ে আছে আমার দিকে । এরপর যতক্ষন অনুষ্ঠান চলল আমাদের সেই চোখাচোখির খেলা চলল । এমনকি নবীন বরণের ফূলটাও আমি নিজে হাতে ওকে দিলাম ।

অনুষ্ঠান শেষ হতেই আমি তাড়াতাড়ি বের হতে চাইলাম । কিন্তু স্যার আটকে দিলেন । সব কাজ শেষ করে বের হতে হতে আরো ঘন্টা খানেক পাড় হয়ে গেল । ততক্ষণে পুরো ভার্সিটি ফাঁকা হয়ে গেছে । ও এতোক্ষন নিশ্চই অপেক্ষা করবে না । মনটা খানিক খারাপ হল । তবুও ওকে তো আবার ফিরে পেলাম ।
মাই গড ! আমার এখনও বিশ্বাসই হচ্ছে না । ও কে আবার দেখতে পাবো ভাবিনি । ভাল লাগছে মনের ভিতর ।
কিন্তু আজ আর একবার দেখা হলে ভাল লাগতো !
গেট দিয়ে বের হবার সময় ....
আবার একই দৃশ্যের পুনরাবূত্তি হল । দেখলাম সেই সেদিন কার মত ও গেটের কাছে জড়সড় হয়ে দাড়িয়ে আছে ।
আমার জন্য !
আবারও সেই দুরুদুরু বুক নিয়ে ওর সামনে দাড়ালাম । কত কিছু বলার ছিল ওকে ! কত কিছু জানার ছিল ওর কাছ থেকে । কি বলব ভেবে পাচ্ছিলাম না । কিন্তু আমার স্বভাব যা । আবারও বোকার মত জানতে চাইলাম
-তোমার কোন বয়ফ্রেন্ড নেই তো ?
প্রশ্নটা করেই মনে হল এটা কি বললাম !!
ও গম্ভীর হতে গিয়ে হেসে ফেলল । বলল
-বয়স বেড়েছে বুদ্ধি বাড়েনি । অন্য কোন বয়ফ্রেন্ড থাকলে আমি দুঘন্টা ধরে তোমার জন্য এখানে দাড়িয়ে থাকতাম না । গাধা কোথাকার ।

(সমাপ্ত)

  • Public
  • Other
  • 2 posts